0 item(s)

জায়গা বাঁচায় ওয়াল কেবিনেট।

Tuesday, June 5, 2018 5:54:02 PM Asia/Dhaka

ঘরের আয়তন কমে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জনপ্রিয়তাও বেড়েছে ওয়াল কেবিনেটের। খাট, খাবার টেবিল আর সোফা ছাড়া অন্য সব ফার্নিচারই এখন দেয়ালের সঙ্গে এঁটে দেওয়া যায়। আধুনিক ধাঁচের এই ছিমছাম ফার্নিচার ঘরের সৌন্দর্য অনেকখানি বাড়িয়ে দেয়। বসার ঘর ছিমছাম করে সাজাতে ওয়াল কেবিনেট ব্যবহার করতে পারেন। শুধু ঘরের দুটি দেয়াল ঘেঁষে সোফা রেখে মাঝে সেন্টার টেবিল রাখুন। সোফার সামনের দেয়ালে কেবিনেট তৈরি করতে পারেন। এ কেবিনেটই একাধারে শোকেস ও এলসিডি ইউনিটের কাজ করবে। কেবিনেটের মধ্যে থাকবে টিভি রাখার তাক। কেবিনেটের নিচের দিকের রাখতে পারেন ডিভিডি, মাল্টিপ্লাগসহ অন্য সরঞ্জাম। নিচেই একপাশে ডিভিডি রাখার র‌্যাক করুন। টিভির দুই পাশ আর ওপরের অংশ শোকেস হিসেবে ব্যবহার করুন। এতে ঘরের জায়গা অনেকটাই বাঁচবে। * সাধারণত খাবার ঘরে টেবিল আর ক্রোকারিজ কেবিনেটই রাখা হয়। খাবার ঘরের ঠিক মাঝখানে খাবার টেবিল রাখুন। খাবার ঘরে শোকেস তৈরি করতে ব্যবহার করুন রুমের বা ড্রয়িংয়ের মাঝের পার্টিশন। কাঠের ফ্রেমের মধ্যে বোর্ডের তাক করে কাচ দিয়ে তৈরি করুন দেয়াল শোকেস। এই কেবিনেটের দুটি অংশ- মেঝে থেকে আড়াই ফুট উচ্চতায় একটি, মধ্যে দেড় ফুট ফাঁকা রেখে ওপরে সিলিং পর্যন্ত আরেকটি। নিচের কেবিনেটে দিন কাঠের পাল্লা আর ওপরের কেবিনেটে কাচের পাল্লা। কাচের পাল্লার কেবিনেটে রাখুন ক্রোকারিজ বা শোপিস। ওভেন, ব্লেন্ডার, টোস্টারসহ নানা গ্যাজেটের জিনিসগুলো রাখুন মাঝের ফাঁকা অংশে। * শোবার ঘরে খাট ছাড়া অন্য সব কিছু যেমন- আলমারি, ওয়ার্ডরোব ও ড্রেসিং টেবিল একটা দেয়াল ফার্নিচারে হয়ে যায়। পুরো দেয়ালজুড়ে একটি কেবিনেট তৈরি করুন। কেবিনেটের মাঝের পাল্লায় আয়না বসিয়ে নিচে ড্রয়ার দিন। চাইলে ড্রেসিং ইউনিট আলাদা দেয়ালে করতে পারেন। * দুটি শোবার ঘর থাকলে মাঝের দেয়ালটাকেই ব্যবহার করুন দুই ঘরের ফার্নিচার হিসেবে। দুই রুমে দুটি আলমারি বানাতে পারেন। সে জন্য পুরো দেয়ালটা অর্ধেক করে দুই পাশে দুই রুমে আলমারির দরজা দিয়ে দিন। এ জন্য দুই রুমের আলমারির দরজা ছাড়া বাকি অংশটুকু ডোকো পেইন্ট করে ফেলুন। তাহলে বোঝা যাবে না, ওই অংশটুকু অন্য আলমারির পেছনের অংশ। দুটি রুমে যাতায়াতের জন্য মাঝে একটি দরজাও ব্যবহার করতে পারেন। আর দরজাজুড়ে দুই পাশেই আয়না ব্যবহার করুন, এতে মনে হবে আয়নাটা আলমারিরই একটা অংশ। * খাটের মাথার দেয়ালের ওপরের অংশে পাল্লাবিহীন কেবিনেট তৈরি করুন। এখানে রাখুন বই আর দু-একটা ফটোফ্রেম। ঘরের কর্নারটা সাজাতে তৈরি করুন কর্নার কেবিনেট। এতে শোপিস, ইনডোর প্লান্ট রাখুন। ঘরের খোলা কর্নারে দেয়াল লাগোয়া ডেস্ক আর কেবিনেট তৈরি করুন। এটাকে ব্যবহার করতে পারেন স্টাডি টেবিল হিসেবে অথবা রাখতে পারেন কম্পিউটার। এ ছাড়া এখানে আনুষঙ্গিক জিনিসও রাখতে পারেন। * শোবার ঘরে অনেকেই টেলিভিশন রাখতে চান। এলইডি, এলসিডি, স্মার্ট টিভি- যা-ই হোক না কেন, দেয়ালে কেবিনেট করে নিন। এ জন্য বিছানার সামনের দেয়ালটি নির্বাচন করুন। বিছানার উচ্চতার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে টিভির উচ্চতা নির্ধারণ করুন। কেবিনেটের মধ্যে টিভি বসিয়ে তার পাশে, ওপরে-নিচে বানিয়ে ফেলুন বুকশেলফ, শোকেস ও সাউন্ড সিস্টেম। ছবির ফ্রেম, পছন্দের কিছু বই, সিডি কিংবা নানা রকম শোপিসের সংগ্রহ রাখতে পারেন এখানে।
Posted in Completed Project By

sawoun barua